আল্লাহ কি সব পাপ ক্ষমা করেন?

কুরআন/হাদিসের (তথাকথিত) স্ববিরোধিতা সংক্রান্ত



স্ববিরোধিতার অভিযোগঃ আল্লাহ কি সবকিছু ক্ষমা করে দেন? – হ্যাঁ (Quran 39:53) এবং না (Quran 4:116) !

আল্লাহ কি তাঁর সাথে শিরককারীদের ক্ষমা করে দেন? – না (Quran 4:48, 4:116) এবং হ্যাঁ (Quran 4:153, 25:70) !

 

জবাবঃ সংশ্লিষ্ট আয়াতগুলো নিচে উল্লেখ করা হল।

 

[১]

 قُلْ يَا عِبَادِيَ الَّذِينَ أَسْرَفُوا عَلَىٰ أَنفُسِهِمْ لَا تَقْنَطُوا مِن رَّحْمَةِ اللَّهِ ۚ إِنَّ اللَّهَ يَغْفِرُ الذُّنُوبَ جَمِيعًا ۚ إِنَّهُ هُوَ الْغَفُورُ الرَّحِيمُ

অর্থঃ “ বল-- হে আমার বান্দারা, যারা নিজেদের উপর যুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ সমস্ত গুনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।” [1]

 

 يَسْأَلُكَ أَهْلُ الْكِتَابِ أَن تُنَزِّلَ عَلَيْهِمْ كِتَابًا مِّنَ السَّمَاءِ ۚ فَقَدْ سَأَلُوا مُوسَىٰ أَكْبَرَ مِن ذَٰلِكَ فَقَالُوا أَرِنَا اللَّهَ جَهْرَةً فَأَخَذَتْهُمُ الصَّاعِقَةُ بِظُلْمِهِمْ ۚ ثُمَّ اتَّخَذُوا الْعِجْلَ مِن بَعْدِ مَا جَاءَتْهُمُ الْبَيِّنَاتُ فَعَفَوْنَا عَن ذَٰلِكَ ۚ وَآتَيْنَا مُوسَىٰ سُلْطَانًا مُّبِينًا

অর্থঃ “তোমার [মুহাম্মাদ(ﷺ)] নিকট আহলে-কিতাবরা আবেদন জানায় যে, তুমি তাদের উপর আসমান থেকে লিখিত কিতাব অবতীর্ণ করিয়ে নিয়ে এসো। বস্তুতঃ এরা মূসার কাছে এর চেয়েও বড় জিনিস চেয়েছে। বলেছে, একেবারে সামনাসামনিভাবে আমাদের আল্লাহকে দেখিয়ে দাও। অতএব, তাদের উপর বজ্রপাত হয়েছে তাদের পাপের দরুন; অতঃপর তাদের নিকট সুস্পষ্ট প্রমাণ-নিদর্শন প্রকাশিত হবার পরেও তারা গো-বৎসকে উপাস্যরূপে গ্রহণ করেছিল; তাও আমি ক্ষমা করে দিয়েছিলাম এবং আমি মূসাকে প্রকৃষ্ট প্রভাব দান করেছিলাম।” [2]

 

إِلَّا مَن تَابَ وَآمَنَ وَعَمِلَ عَمَلًا صَالِحًا فَأُولَٰئِكَ يُبَدِّلُ اللَّهُ سَيِّئَاتِهِمْ حَسَنَاتٍ ۗ وَكَانَ اللَّهُ غَفُورًا رَّحِيمًا

অর্থঃ “কিন্তু যারা তওবা করে বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম করে, আল্লাহ তাদের গুনাহকে পুন্য দ্বারা পরিবর্তত করে এবং দেবেন। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।” [3]

 

[২]

إِنَّ اللَّهَ لَا يَغْفِرُ أَن يُشْرَكَ بِهِ وَيَغْفِرُ مَا دُونَ ذَٰلِكَ لِمَن يَشَاءُ ۚ وَمَن يُشْرِكْ بِاللَّهِ فَقَدِ افْتَرَىٰ إِثْمًا عَظِيمًا

অর্থঃ “ নিঃসন্দেহে আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন না, যে লোক তাঁর সাথে শরীক করে। তিনি ক্ষমা করেন এর নিম্ন পর্যায়ের পাপ, যার জন্য তিনি ইচ্ছা করেন। আর যে লোক অংশীদার সাব্যস্ত করল আল্লাহর সাথে, সে যেন অপবাদ আরোপ করল।” [4]

 

  إِنَّ اللَّهَ لَا يَغْفِرُ أَن يُشْرَكَ بِهِ وَيَغْفِرُ مَا دُونَ ذَٰلِكَ لِمَن يَشَاءُ ۚ وَمَن يُشْرِكْ بِاللَّهِ فَقَدْ ضَلَّ ضَلَالًا بَعِيدًا

অর্থঃ “নিশ্চয়ই আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন না, যে তাঁর সাথে কাউকে শরীক করে। এছাড়া যাকে ইচ্ছা, ক্ষমা করেন। যে আল্লাহর সাথে শরীক করে সে সুদূর ভ্রান্তিতে পতিত হয়।[5]

 

আল্লাহ কি কুফর, শির্ক, ধর্মত্যাগ ইত্যাদি বড় বড় গুনাহ ক্ষমা করেন? এ সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তরে শাইখ আসিম আল হাকিম(হাফিজাহুল্লাহ) বলেনঃ আল্লাহ তা’আলা এ সকল গুনাহও ক্ষমা করেন। কেননা আল্লাহ সুরা মায়িদাহ এ (৭২ ও ৭৩নং আয়াত) খ্রিষ্টানদের শির্ক ও কুফরের বিবরণ দিয়েছেন এবং এর পর পরই তাদেরকে তাওবা করার কথা বলছেন  (৭৪ নং আয়াত) যার ফলে তাদেরকে ক্ষমা করা হবে। এ থেকে প্রমাণিত হয় যে আল্লাহ এ সকল গুনাহও ক্ষমা করবেন যদি কেউ আন্তরিকভাবে তাওবা করে। [6]  সুরা নিসা ৪:১৫৩ নং আয়াতেও দেখা যাচ্ছে যে বনী ইস্রাঈল গো বৎসের পুজা করে শির্কে লিপ্ত হবার পরেও আল্লাহ তাদেরকে ক্ষমা করেছেন।  সুরা যুমার ৩৯:৫৩ ও সুরা ফুরকান ২৫:৭০ এ আয়াতগুলো দ্বারা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ হয় যে আল্লাহ সকল প্রকার গুনাহ ক্ষমা করে দেন।

 

সুরা নিসা ৪:৪৮ ও ৪:১১৬ এই আয়াতগুলোতে বলা হচ্ছে আল্লাহ তাঁর সঙ্গে অংশী করার(শির্ক) গুনাহ ক্ষমা করবেন না। এই আয়াতগুলো কি কুরআনের অন্য আয়াতের সাথে সাংঘর্ষিক? প্রখ্যাত দাঈ ড. জাকির নায়েক সুরার নিসার আলোচ্য আয়াত সংক্রান্ত আলোচনায় বলেনঃ কেউ যদি শির্কের গুনাহ করে তাওবা না করে মারা যায়, তাহলে আল্লাহ পরকালে সেই গুনাহ মাফ করবেন না। এ ছাড়া অন্য সকল গুনাহ আল্লাহ চাইলে মাফ করতে পারেন। ইহকালে ক্ষমা চাক বা না চাক -শির্ক ব্যতিত যে কোন গুনাহ আল্লাহ পরকালে ক্ষমা করতে পারেন (যদি সেটা অন্য কারো হক নষ্ট করার গুনাহ না হয়)। [7] অর্থাৎ এটি পরকালের সাথে সংশ্লিষ্ট। ইহকালে মানুষ যে কোন পাপ করে যদি আল্লাহর নিকট ক্ষমা চায় ও সঠিকরূপে তাওবা করে, আল্লাহ তা’আলা সে সকল কিছু ক্ষমা করে দেন।

 

অতএব সুরা নিসা ৪:৪৮ ও ৪:১১৬ এই আয়াতগুলো কুরআনের অন্য আয়াতগুলোর সাথে সাংঘর্ষিক নয়; আল্লাহ তা’আলা সকল পাপ মাফ করেন যদি কেউ ইহকালে আল্লাহর নিকট ক্ষমা চায় ও সঠিকরূপে তাওবা করে। 

এবং আল্লাহ ভালো জানেন।

 

 

তথ্যসূত্রঃ

[1]  আল কুরআন, যুমার ৩৯:৫৩

[2]  আল কুরআন, নিসা ৪:১৫৩

[3]  আল কুরআন, ফুরকান ২৫:৭০

[4]  আল কুরআন, নিসা ৪:৪৮

[5]  আল কুরআন, নিসা ৪:১১৬

[6]  “Does Allah forgive shirk if we repent By Assim Al Hakeem”

https://www.youtube.com/watch?v=V29SE0D0-Xw

[7]  “Is there any limitation to the sins that Allah forgive Dr. Zakir Naik”

https://www.youtube.com/watch?v=1gMf-YK16Z4