Pray for the world economy

আয়িশাহ (রা.) এর মতে তিনি ৯ বছর বয়সে প্রাপ্তবয়স্কা ছিলেন

 

 হারব বিন ইসমাইল আল-কিরামানী (রহ.) বর্ণনা করেছেনঃ

 

قال حرب حدثنا إسحاق قال: أنبأ زكريا بن عدي، عن أبي المليح، عن حبيب بن أبي مرزوق، عن عائشة رضي اللَّه عنها قالت: إذا بلغت الجارية تسعًا فهي امرأة [1]

হাবিব বিন আবি-মারযুক, আয়িশাহ (রা.) হতে বর্ননা করেছেন যে তিনি (রা.) বলেছেন : "যখন একটি মেয়ে ৯ বছর বয়সে পৌছায়, তখন সে মহিলা (প্রাপ্তবয়স্কা) হয়ে যায় "

 

উক্ত বর্ণনাটির সনদ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনাঃ

 

সনদটি হলো এরূপ,

 

قال حرب حدثنا إسحاق قال: أنبأ زكريا بن عدي، عن أبي المليح، عن حبيب بن أبي مرزوق، عن عائشة[1]

হারব ইসহাক জাকারিয়া বিন আদি আবুল মালিহ হাবিব বিন আবি মারযুক আয়িশাহ (রা.)

 

১।

উক্ত সনদের প্রথম রাবি "حرب" (হারব); তাঁর সম্পুর্ণ নাম-পরিচয় হলোঃ

  أبو محمد حرب بن إسماعيل بن خلف الحنظلي الكرماني

(আবু মুহাম্মাদ হারব বিন ইসমাইল বিন খালফ আল-হানযালী আল-কিরামানী) ।

হারব বিন ইসমাইল  সম্পর্কে জারাহ তাদিলের উলামাদের বক্তব্য— [2]

 

আবু যুর'আহ আদ-দিমাশকীঃ "তিনি উত্তম-ভদ্র লোকদের একজন।"

আহমাদ বিন মুহাম্মাদ আল-খাল্লালঃ "একজন মহান ব্যাক্তি।"

আয-যাহাবীঃ "আমি তাঁর সম্পর্কে নেতিবাচক কিছু পাইনি।"

আব্দুল হাই ইবনুল আমাদ আল-হাম্বলীঃ "হাফেয।"

 

২।

উক্ত সনদের ২য় রাবি "إسحاق" (ইসহাক); তাঁর সম্পুর্ন নাম-পরিচয় হলোঃ

أبو يعقوب إسحاق بن إبراهيم بن مخلد بن إبراهيم بن مطر ابن راهويه الحنظلي المروزي

(আবু ইয়াকুব ইসহাক বিন ইব্রাহিম বিন মুখলিদ বিন ইব্রাহিম বিন মাতার ইবন রাহুওইয়াহ আল-হানযালী আল-মারুযী) ।

 

ইসহাক বিন ইব্রাহিম সম্পর্কে জারাহ তাদিলের উলামাগণ প্রচুর প্রশংসা করেছেন। তিনি খুবই বড় মাপের একজন মুহাদ্দিস ও ইমাম ছিলেন। [3]

 

৩।

উক্ত সনদের ৩য় রাবি "زكريا بن عدي" (জাকারিয়া বিন আদি); তাঁর সম্পুর্ণ নাম-পরিচয় হলোঃ

  أبو يحيى زكريا بن عدي بن رزيق بن إسماعيل الرقي التيمي الكوفي

(আবু ইয়াহইয়া জাকারিয়া বিন আদি বিন রুযাইক বিন ইসমাইল আর-রাক্কী আত-তাইমি আল-কুফি)।

 

জাকারিয়া বিন আদি সম্পর্কে জারাহ তাদিলের উলামাদের বক্তব্য— [4]

 

আহমাদ বিন সালিহ আল-জাইলীঃ “ছিকাহ, সৎ লোক।

ইবন হাজার আল-আসকালানীঃ “ছিকাহ, একজন মহান হাফেয।

আব্দুর রহমান বিন মারযুকঃ “আমি তাঁর চেয়ে শ্রেষ্ঠ আর কারো হতে হাদিস লিখিনি।

আয-যাহাবীঃ  আমি তাঁর চেয়ে বড় হাফেয দেখিনি।

আল-মুনযির বিন শাযানঃ “আমি তাঁর চেয়ে বড় হাফেয দেখিনি।

আব্দুর রহমান বিন ইউসুফ বিন খিরাশঃ “ছিকাহ, মহান ব্যাক্তি।

মুহাম্মাদ বিন সা'দঃ “সৎ, সত্যবাদী, ছিকাহ।

ইয়াহইয়া বিন মাইনঃ “তাঁর মধ্যে কোনো সমস্যা নেই।

 

৪।

উক্ত সনদের ৪র্থ রাবী "أبو المليح" (আবুল-মালিহ); তাঁর সম্পুর্ণ নাম-পরিচয় হলোঃ

 أبو المليح حسن بن عمر بن يحيى الرقي الفزاري

(আবুল-মালিহ হাসান বিন উমার বিন ইয়াহইয়া আর-রাক্কী আল-ফাযারী) ।

 

আবুল মালিহ সম্পর্কে জারাহ তাদিলের উলামাদের বক্তব্য— [5]

 

আবু হাতিম আর-রাযীঃ “তাঁর হাদিস লেখা যাবে।

আবু যুর'আহ আর-রাযীঃ “ছিকাহ।

আহমাদ বিন হাম্বলঃ “ছিকাহ, হাদিস সংরক্ষনকারী, সত্যবাদী।

ইবন হাজার আল-আসকালানীঃ “ছিকাহ।

আদ-দারাকুতনীঃ “ছিকাহ।

ইয়াহইয়া বিন মাইনঃ “ছিকাহ।”

 

৫।

উক্ত সনদের ৫ম রাবী "حبيب بن أبي مرزوق" (হাবিব বিন আবি মারযুক); তাঁর সম্পুর্ণ নাম পরিচয় হলোঃ

حبيب بن أبي مرزوق الجزري الرقي

 (হাবিব বিন আবি মারযুক আল-জাযারি আর-রাক্কী)।

 

হাবিব বিন আবি-মারযুক সম্পর্কে জারাহ তাদিলের উলামাদের বক্তব্য— [6]

 

আবু দাউদ আস-সাজাস্তানীঃ “ছিকাহ।”

আহমাদ বিন হাম্বলঃ “আমি তাঁর মধ্যে নেতিবাচক কিছু দেখি না।”

ইবন হাজার আল-আসকালানীঃ “ছিকাহ, সম্মানিত।”

আদ-দারাকুতনীঃ “ছিকাহ, দলিলযোগ্য।”

আয-যাহাবীঃ “সত্যবাদী।”

হিলাল ইবনুল আলা আর-রাক্কীঃ “সত্যবাদী শায়খ।”

ইয়াহইয়া বিন মাইনঃ “মশহুর ব্যাক্তি ।”

 

যেহেতু সনদটির সকল রাবি গ্রহনযোগ্য, সুতরাং উক্ত সনদটি সহীহ। আর এ কারণেই ফকিহ-মুহাদ্দিসদের এক বিশাল অংশ ফিকহী বিষয়ে এই হাদিসটির উপর নির্ভর করেছেন ও একে দলিল হিসেবে গ্রহণ করেছেন; যা এর গ্রহণযোগ্যতাকে আরো শক্তিশালী করে তোলে।

 

অতএব, আয়িশাহ(রা.) এর নিজ বক্তব্যের দ্বারা প্রমাণিত হলো যে নবী এর সাথে তাঁর যখন বাসর হয়, অর্থাৎ ৯ বছর বয়সে তিনি প্রাপ্তবয়স্কা নারী ছিলেন, বালেগা ছিলেন। যেখানে স্বয়ং আয়িশাহ(রা.) নিজ বাসর হবার বয়সকে প্রাপ্তবয়স্কা বা বালেগা নারীর বয়স বলে অভিহীত করছেন, সেখানে দেড় হাজার বছর পরে কিছু ইসলামবিরোধী নতুন করে তাঁকে “শিশু” বানিয়ে কী অভিযোগ তুললো এতে কিছুই আসে যায় না। এ যেন মায়ের চেয়ের মাসীর দরদ বেশি।

 

 

প্রমাণসমূহঃ


[1] মাসাইলু হারব আল-কিরামানী, কিতাবুত তাহারাহ ওয়াস সালাহ (পৃ/587-বর্ননা/1289), প্রকাশনায় - "মুয়াসসাতুর রাইয়ান ", মুহাক্কিক - মুহাম্মাদ বিন আব্দুল্লাহ আস-সির'রিঈ