বালকের বৃদ্ধ হবার পূর্বেই ‘কিয়ামত’ হওয়া শীর্ষক হাদিসঃ নবী(ﷺ) কি কিয়ামতের ভুল ভবিষ্যৎবাণী করেছেন?

কুরআন/হাদিসের (তথাকথিত) অসঙ্গতি সংক্রান্ত



 

নাস্তিক প্রশ্নঃ

মুহাম্মাদ(ﷺ) মনে করতেন যে তাঁর  অল্প কিছুকাল পরেই পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাবে! তিনি একবার এক বালককে দেখিয়ে বলেছিলেন যে – সে বৃদ্ধ হবার আগেই কিয়ামত এসে যাবে! অথচ আজ পর্যন্ত কিয়ামত হয়নি, পৃথিবী ধ্বংস হয়নি। একজন সত্য নবী কি ভুল ভবিষ্যৎবাণী করতে পারে?

 

উত্তরঃ

এর উত্তরে আমরা শায়খ মুহাম্মাদ সালিহ আল মুনাজ্জিদ(হাফিজাহুল্লাহ) এর একটি ফতোয়া সম্পূর্ণ উল্লেখ করছি।

 

ফতোয়া নং : ২০৬৭৩ [মধ্যবর্তী কিয়ামত]

 

প্রশ্নঃ

আমি নিচের ইসলামী ওয়েবসাইট থেকে কিয়ামতের আলামতের ব্যাপারে পড়ছিলাম। আমার নজরে একটা হাদিস এলো। হাদিসটি নিম্নরূপঃ

[কিছু হাদিসের বর্ণনা অনুযায়ী নবী()-কে কিয়ামতের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হয়েছিলো। তখন তিনি তাদের মাঝে সবচেয়ে কম বয়সীর [বালক] প্রতি নযর করে বললেন, এ যদি বেঁচে থাকে তবে সে বৃদ্ধ হওয়ার পুর্বেই তোমাদের উপর তোমাদের কিয়ামত সংগঠিত হবে।” এর দ্বারা তিনি তাদের মৃত্যু হওয়া এবং কিয়ামতকে বুঝিয়েছেন। কারণ কোনো ব্যক্তি মৃত্যুর সাথে সাথে আখিরাতে প্রবেশ করে। কারো কারো মতে কেউ মারা যাবার সাথে সাথে তার হিসাব শুরু হয়। হাদিসের এই অর্থটিই সঠিক।]

এই হাদিসের অর্থ কি এই যে, ঐ বালকটি বৃদ্ধ হবার আগেই কিয়ামত হয়ে যাবে? দয়া করে বলুন ওয়েবসাইটে উল্লেখিত হাদিসের ঐ অর্থটি সঠিক কিনা। আমি কিছুটা বিভ্রান্ত কাজেই অনুগ্রহ করে হাদিসটির সঠিক অর্থ বিষদ ব্যাখ্যা করুন।

 

উত্তরঃ

যাবতীয় প্রশংসা আল্লাহর।

 

এই হাদিসটি সহীহাঈন (বুখারী ও মুসলিম) এ বিভিন্ন রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে। যেমন, বুখারী (৬১৪৬) এবং মুসলিম (২৯৫২) এ –

حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرِ بْنُ أَبِي شَيْبَةَ، وَأَبُو كُرَيْبٍ قَالاَ حَدَّثَنَا أَبُو أُسَامَةَ، عَنْ هِشَامٍ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ عَائِشَةَ، قَالَتْ كَانَ الأَعْرَابُ إِذَا قَدِمُوا عَلَى رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم سَأَلُوهُ عَنِ السَّاعَةِ مَتَى السَّاعَةُ فَنَظَرَ إِلَى أَحْدَثِ إِنْسَانٍ مِنْهُمْ فَقَالَ ‏ "‏ إِنْ يَعِشْ هَذَا لَمْ يُدْرِكْهُ الْهَرَمُ قَامَتْ عَلَيْكُمْ سَاعَتُكُمْ ‏"‏

অর্থঃ আয়িশা(রা.) থেকে বর্ণিত যিনি বলেছেন, “বেদুঈনরা রাসুলুল্লাহ() এর নিকট এসেই তাকে কিয়ামত সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে বললো, কিয়ামত কবে হবে? তখন তিনি তাদের মাঝে সবচেয়ে কম বয়সীর [বালক] প্রতি নযর করে বললেন, এ যদি বেঁচে থাকে তবে সে বৃদ্ধ হওয়ার পুর্বেই তোমাদের উপর তোমাদের কিয়ামত সংগঠিত হবে।” হিশাম [হাদিসটির একজন বর্ণনাকারী] বলেছেন, এর অর্থ হলো মৃত্যু।

 

হাদিসটির অর্থ পরিষ্কার। এ হাদিসে যা বলা হয়েছে তা হলো, সেই লোকগুলোর কিয়ামত অর্থাৎ তাদের মৃত্যু খুব নিকটবর্তী ছিলো। আর তা সংঘটিত হবে বালকটির বৃদ্ধ হবার আগেই। এ হাদিসে সা’আতুল কুবরার (বড় কিয়ামত) কথা উল্লেখ করা হয়নি যা হচ্ছে পুনরুত্থান দিবস।   

 

কাজী [ইয়ায] (র.) বলেছেন, এখানে “তোমাদের কিয়ামত” বলতে বোঝানো হয়েছে তাদের মৃত্যু। এর মানে হচ্ছে তাদের প্রজন্মের মৃত্যু অথবা সম্বোধিত ব্যক্তিদের মৃত্যু।

[শারহে মুসলিমে ইমাম নববী(র.) থেকে উদ্ধৃত]

 

আল কারমানী(র.) বলেছেন, [নবী(ﷺ) এর] এ উত্তরটি বেশ হিকমতপূর্ণ ছিলো। এর দ্বারা বেশ হিকমতপূর্ণ উপায়ে কিয়ামাতুল কুবরার (বড় কিয়ামত) দিনক্ষণ জিজ্ঞেস করতে নিষেধ করে দেয়া হয়েছে কেননা আল্লাহ ছাড়া কেউই সেটা জানে না। বরং তাদের এটা জানতে চাওয়া উচিত যে কবে তাদের প্রজন্মের সমাপ্তি আসবে। কারণ সেটি তাদেরকে সময় ফুরিয়ে যাবার আগেই বেশি করে নেক কর্ম সম্পাদনে উৎসাহিত করবে। কেননা কেউ জানে না যে কে কার আগে মারা যাবে।

 

রাগিব ইসফাহানী(র.) বলেছেন, সা’আতুন (ساعة) শব্দের অর্থ হচ্ছে সময়ের একটি অংশ এবং এটি দ্বারা কিয়ামতকে নির্দেশ করা হয়। এ দ্বারা বোঝানো হয় যে হিসাব গ্রহণ খুবই দ্রুত হবে। আল্লাহ বলেছেন,

 

وَهُوَ أَسرَعُ الحاسِبينَ

অর্থঃ “এবং তিনি দ্রুত হিসাব গ্রহণ করবেন।”

(আল কুরআন, আন’আম ৬ : ৬২)

 

অথবা এ দ্বারা এই আয়াতে উল্লেখিত বক্তব্যের দিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে,

 

كَأَنَّهُم يَومَ يَرَونَ ما يوعَدونَ لَم يَلبَثوا إِلّا ساعَةً مِن نَهارٍ ۚ 

অর্থঃ “ওদেরকে যে বিষয়ে ওয়াদা দেয়া হতো, তা যেদিন তারা প্রত্যক্ষ করবে, সেদিন তাদের মনে হবে যেন তারা দিনের এক মুহূর্তের বেশি পৃথিবীতে অবস্থান করেনি।”

(আল কুরআন, আহকাফ ৪৬ : ৩৫)

 

সা’আতুন (ساعة) শব্দটি দ্বারা তিনটি জিনিস বোঝানো হয়ঃ

■ সা’আতুল কুবরা (বড় সময় বা বড় কিয়ামত); আর তা হলো যেদিন মানুষকে হিসাব গ্রহণের জন্য পুনরুত্থিত করা হবে।

■ সা’আতুল উসতা (মধ্যবর্তী সময় বা মধ্যবর্তী কিয়ামত) আর তা হলো কোনো প্রজন্মের মৃত্যু

■ সা’আতুস সুগরা (ছোট সময় বা ছোট কিয়ামত) আর তা হলো কোনো ব্যক্তির মৃত্যু

কাজেই প্রত্যেক ব্যক্তির কিয়ামত হলো তার মৃত্যু।

[ফাতহুল বারী থেকে গৃহিত]

 

এবং আল্লাহই সর্বোত্তম জানেন।

 

এ ব্যাপারে এই আলোচনাটিও দেখা যেতে পারেঃ 

বালকের বৃদ্ধ হবার পূর্বেই কিয়ামত শীর্ষক হাদিস নিয়ে সংশয় নিরসন | মুহাম্মাদ মুশফিকুর রহমান মিনার

https://youtu.be/CwZPQpsqUC4

 

 

অনুবাদঃ

 মুহাম্মাদ মুশফিকুর রহমান মিনার

 

মূল আর্টিকেলঃ

ইংরেজিঃ https://islamqa.info/en/20673/

আরবিঃ https://islamqa.info/ar/20673/