মিরাজের রাতে নামায ৫০ থেকে ৫ ওয়াক্ত হবার দ্বারা কি আল্লাহর বাণী বা সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয়েছে?

ইসলামী বিশ্বাস সংক্রান্ত কুরআন/হাদিসের (তথাকথিত) স্ববিরোধিতা সংক্রান্ত



 

মূলঃ Islamweb

অনুবাদঃ মুহাম্মাদ মুশফিকুর রহমান মিনার

 

ফতোয়া নং : ৩২৬১৪৩  [সলাত ৫০ ওয়াক্ত থেকে ৫ ওয়াক্ত হওয়ার ব্যাপারে (ইসলামবিরোধীদের) বিদ্বেষপূর্ণ অভিযোগ ]

 

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম। একজন অবিশ্বাসী প্রশ্ন তুলেছে যে— মুসলিমরা ৫ ওয়াক্ত সলাত (নামায) পড়ে কেননা সহীহ বুখারীর একটি হাদিসে বলা আছে যে [মিরাজের রাতে] আল্লাহ ৫০ ওয়াক্ত থেকে কমিয়ে সলাত ৫ ওয়াক্ত করে দেন। হাদিসের শেষাংশে বলা হয়েছে, “এই পাঁচই (নেকির দিক দিয়ে) পঞ্চাশ (বলে গণ্য হবে)। আমার কথা/বাণীর কোনো রদবদল হয় না”। কিন্তু সলাত যে ৫০ ওয়াক্ত থেকে কমিয়ে ৫ ওয়াক্ত করা হলো এর দ্বারা কি আল্লাহর কথার রদলবদল হলো না? আল্লাহ কেন শুধুমাত্র এটি বললেন না, যে তোমরা ৫০ ওয়াক্তই পড়বে কেননা আমার কথার রদলবদল হয় না?

 

উত্তরঃ

যাবতীয় প্রশংসা আল্লাহর, যিনি জগৎসমূহের প্রতিপালক। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে আল্লাহ ছাড়া কোনো সত্য উপাস্য নেই এবং এবং মুহাম্মাদ(ﷺ) তাঁর বান্দা ও রাসুল।

 

হাদিসটিতে কোনো স্ববিরোধিতা নেই। আল্লাহ তা’আলা দয়াপরবশ হয়ে ফরয সলাতকে ৫০ ওয়াক্ত থেকে কমিয়ে ৫ ওয়াক্ত করেছেন। [মিরাজের রাতে] শুরুতে  ৫০ ওয়াক্ত সলাত ফরয করা হয়েছিলো যাতে নবী(ﷺ) আল্লাহর নিকট ফিরে যান এবং তা কমানোর জন্য মিনতি করেন। যা আমরা [মিরাজের হাদিসের] সেই বিখ্যাত ঘটনাটি থেকে জেনেছি। ৫০ ওয়াক্ত ফরয সলাতের হুকুম থেকে অব্যাহতি দেয়া নিঃসন্দেহে বান্দাদের প্রতি মহান আল্লাহর দয়া ও স্নেহের পরিচায়ক। যাবতীয় প্রশংসা তাঁর।

 

আল্লাহ তা’আলার “আমার কথা/বাণীর কোনো রদবদল হয় না” এই বক্তব্যের ব্যাখ্যা হচ্ছে—যদি কেউ ৫ ওয়াক্ত সলাত পড়ে, তাহলেই সে ৫০ ওয়াক্তের সওয়াব পাবে। আল্লাহর অপরিবর্তনীয় বাণী হচ্ছেঃ ৫ ওয়াক্তের সওয়াব ৫০ ওয়াক্তের সওয়াবের সমান হবে। ৫০ ওয়াক্ত ফরয – এটি অপরিবর্তনীয় বাণী নয়। ক্বারী(র.) বলেছেন,  “...তা হচ্ছে ৫০ অর্থাৎ ৫০ ওয়াক্তের সমান সওয়াব। ... এ কথার অর্থ এটিও হতে পারে যে, “আল্লাহ ৫ ওয়াক্ত ফরয সলাতের সওয়াবকে ৫০ ওয়াক্ত ফরয সলাতের সমান করেছেন” - এটি হচ্ছে সেই বাণী যা রদলবদল নেই। এর অর্থ এটিও হতে পারে যে, “ফরয সলাত ৫০ এর পরিবর্তে ৫ ওয়াক্ত হয়ে যাবে” - এটি হচ্ছে সেই বাণী যা রদলবদল নেই। ”

[মিরকাতুল মাফাতিহ শারহ মিশকাতুল মাসাবিহ]

 

হাদিসের অর্থ যেহেতু স্পষ্ট হয়েছে তাই আশা করা যায় এখান থেকে আর কোনো আপাত স্ববিরোধিতা খুঁজে পাওয়া যাবে না। যাবতীয় প্রশংসা আল্লাহর।

 

আল্লাহই উত্তম জানেন।

 

মূল ফতোয়ার লিঙ্কঃ  https://www.islamweb.net/en/fatwa/326143/

 

_____

এ ব্যাপারে এই আলোচনাটিও দেখা যেতে পারেঃ 

 

মিরাজের রাতে নামায ৫০ ওয়াক্ত থেকে কমে ৫ ওয়াক্ত হওয়ায় কি নবীর কথায় আল্লাহর বাণী পরিবর্তন হয়েছে? _ শায়খ ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

https://www.youtube.com/watch?v=2vO5w-5tgtM 

 

আরো পড়ুনঃ

 

মিরাজের রাতে নবী(ﷺ) কি আসলেই ডানাওয়ালা ঘোড়ায় করে আসমানে গিয়েছেন?

 

নবী (ﷺ) এর ইসরা ও মিরাজ: ইসরার ঘটনার সত্যতা কতটুকু? মাসজিদুল আকসা (বাইতুল মুকাদ্দাস) কি আসলেই সে সময়ে ছিল?


কা'বা ও আল আকসা নির্মাণের সময়ের ব্যাবধান সম্পর্কে হাদিসের তথ্য কতটুকু সঠিক?

 

মিরাজের যাত্রা শুরুর স্থান নিয়ে হাদিসে কি স্ববিরোধিতা আছে?

 

মিরাজের ঘটনায় রাসুল(ﷺ) ও উম্মে হানী(রা.) এর উপর ইসলামবিরোধীদের নোংরা অপবাদের জবাব